প্রচ্ছদ বৃটেন লন্ডন বাংলা প্রেস ক্লাব নির্বাচনে এমাদ-জুবায়ের টিমের ১০টি পদে জয়

লন্ডন বাংলা প্রেস ক্লাব নির্বাচনে এমাদ-জুবায়ের টিমের ১০টি পদে জয়

273
0
নারী ডেক্স : গত ২৭ জানুয়ারী বিপুল উৎসাহ ও উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠিত হলো লন্ডন বাংলা প্রেস ক্লাবের দ্বিবার্ষিক সাধারণ নির্বাচন। নির্বাচনে সভাপতি পদে জয়ী হয়েছেন সাপ্তাহিক পত্রিকা সম্পাদক মোহাম্মদ এমদাদুল হক চৌধুরী। সেক্রেটারি ও ট্রেজারার পদে দ্বিতীয়বারের মতো নির্বাচিত হয়েছেন যথাক্রমে চ্যানেল এস-এর চীফ রিপোর্টার মুহাম্মদ জুবায়ের ও বাংলাদেশ প্রতিদিনের ইউরোপ ব্যুরো চীফ আ স ম মাসুম।
নির্বাচনকে ঘিরে পূর্ব লন্ডনের ইমপ্রেসন ইভেন্ট ভ্যানু লণ্ডনসহ পুরো ইউকে’র বিভিন্ন শহরের প্রিন্ট, অনলাইন ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকদের পদচারণায় মুখরিত হয়ে উঠেছিল। সাংবাদিকদের মিলন মেলায় জমেছিল জমজমাট আড্ডা। লন্ডন-বাংলা প্রেসক্লাবে এ বছর মোট ভোটার হচ্ছেন ৩১৮ জন। এর মধ্যে ভোট পড়েছে ৩১৬টি।

নির্বাচনের পূর্বে দুপূর বারোটায় শুরু হয় এজিএম। বিকেল বিকেল আড়াইটা থেকে সন্ধ্যা ছয়টা পর্যন্ত চলে ভোট গ্রহণ। ফলাফল ঘোষিত হয় রাত ১১টায়। ফলাফল অপেক্ষার ফাঁকে অনুষ্ঠিত হয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও ভোজসভা। এতে উপস্থিত ছিলেন ক্লাবের জীবনসদস্য, দাতা সদস্য এবং শুভাকাঙক্ষীরা। অনুষ্ঠানে সঙ্গীত পরিবেশন করেন শিল্পী আলাউর রহমানসহ ক্লাবের সদস্যরা।

মোট ১৫টি পদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনে প্রেসিডেন্ট, ভাইস প্রেসিডেন্ট, সেক্রেটারী, এসিস্ট্যান্ট সেক্রেটারী, ট্রেইনিং এন্ড রিসোর্স সেক্রেটারী, ইভেন্ট এন্ড ফ্যাসিলিটিজ সেক্রেটারীসহ ১০টি পদে এমাদ- জুবায়ের প্যানেল বিপুলভাবে জয়লাভ করে। অপরদিকে ট্রেজারার, কমিউনিকেশন সেক্রেটারী, ইনফরমেশন এন্ড টেকনোলজি সেক্রেটারীসহ ৫ টি পদে নাহাস পাশা- মাসুম প্যানেল জয়লাভ করে।
নির্বাচন পরিচালনা করেন তিন সদস্যের নির্বাচন কমিশন। এতে প্রধান নির্বাচন কমিশনারের দায়িত্ব পালন করেন বজলুর রশিদ এমবিই। কমিশনার হিসেবে তাঁকে সহযোগিতা করেন ব্যারিস্টার আনোয়ার বাবুল মিয়া ও এসএসবিএ-এর চেয়ারম্যান আজিজ চৌধুরী। এছাড়াও এমাদ-জুবায়ের-মুরাদ প্যানেলের পক্ষে পর্যবেক্ষকের দায়িত্ব পালন করেন সাপ্তাহিক পত্রিকার প্রধান সম্পাদক মোহাম্মদ বেলাল আহমদ ও সাপ্তাহিক দেশ সম্পাদক তাইসির মাহমুদ এবং টিম নাহাস পাশার পক্ষে পর্যবেক্ষক ছিলেন সাপ্তাহিক জনমত এর নির্বাহী সম্পাদক সাঈম চৌধুরী ও সত্যবাণী অনলাইন নিউজ পোর্টালের প্রধান সম্পাদক সৈয়দ আনাস পাশা।
প্রেসিডেন্ট- মোহাম্মদ এমদাদুল হক চৌধুরী প্রাপ্ত (ভোট ১৬৩), নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী সৈয়দ নাহাস পাশা প্রাপ্ত( ভোট ১৫১), ভাইস প্রেসিডেন্ট- তারেক চৌধুরী (ভোট ১৮৪), প্রতিদ্বন্দ্বী মোহাম্মদ আব্দুস সাত্তার (ভোট ১২৫), জেনারেল সেক্রেটারী মোহাম্মদ জুবায়ে (ভোট ১৯২), প্রতিদ্বন্দ্বী আনিসুর রহমান আনিস (ভোট ১১৩), এসিস্ট্যান্ট সেক্রেটারী মোহাম্মদ মতিউর রহমান চৌধুরী (ভোট ১৭৮), প্রতিদ্বন্দ্বী মোহাম্মদ সুবহান (ভোট ১২৫), ট্রেজারার আবু সালেহ মোহাম্মদ মাসুম (ভোট ২০০), প্রতিদ্বন্দ্বী আব্দুল কাদির চৌধুরী মুরাদ (ভোট ১০৭), কমিউনিকেশন সেক্রেটারী মোহাম্মদ আব্দুল কাইয়ুম (ভোট ১৬৪), প্রতিদ্বন্দ্বী জাকির হোসেন কয়েস (ভোট ১৩৯), ট্রেইনিং এন্ড রিসোর্স সেক্রেটারী ইব্রাহিম খলিল (ভোট ১৫৫), নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আহাদ চৌধুরী বাবু প্রাপ্ত (ভোট ১৫১), ইনফরমেশন এন্ড টেকনোলজি সেক্রেটারী সালেহ আহমদ (ভোট ১৮০), প্রতিদ্বন্দ্বী আনোয়ার শাহজাহান(ভোট ১২৮), ইভেন্ট এন্ড ফ্যাসিলিটিজ সেক্রেটারী মোহাম্মদ রেজাউল করিম মৃধা (ভোট ১৭১), প্রতিদ্বন্দ্বী আজহারুল হক ভূঁইয়া (ভোট ১৩৫)।

নির্বাহী সদস্যপদে বিজয়ীরা হলেন- সাপ্তাহিক সুরমার বার্তা সম্পাদক আব্দুল কাইয়ুম (সর্বোচ্চ ১৯১ ভোট), চ্যানেল-এস এর সিনিয়র নিউজ প্রেজেন্টার রুপী আমিন (১৬৫ ভোট), সাপ্তাহিক জনমত-এর মোঃ এমরান আহমদ (১৫৭ ভোট), নতুন দিন অনলাইনের পলি রহমান (১৫৭ ভোট), এনটিভির নিউজ প্রেজেন্টার নাজমুল হোসেইন (১৫৬ ভোট), নারী এশিয়ান ম্যাগাজিনের শাহনাজ সুলতানা (১৪৭ ভোট)।

সন্ধ্যায় অনুষ্ঠিত সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে বক্তৃতা করেন লণ্ডনস্থ বাংলাদেশ হাই কমিশনের মিনিস্টার (প্রেস) আশেকুন্নবী চৌধুরী। এ সময় নির্বাচন না করে ক্লাব কমিটি থেকে বিদায় নেয়া ভাইস প্রেসিডেন্ট মাহবুব রহমান ও নির্বাহী সদস্য আমিরুল চৌধুরীকে সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান করা হয়। মিনিস্টার (প্রেস) ও বিদায়ী প্রেসিডেন্ট সৈয়দ নাহাস পাশা ও সেক্রেটারি মুহাম্মদ জুবায়ের এসব ক্রেস্ট তুলে দেন।