প্রচ্ছদ বিনোদন মৃত্যুর পরেও বাঙালির হৃদয়ের স্বপ্নের রাণী সুচিত্রা সেন

মৃত্যুর পরেও বাঙালির হৃদয়ের স্বপ্নের রাণী সুচিত্রা সেন

1815
0
ভারতীয় বাঙালি অভিনেত্রী সুচিত্রা সেন। ২০১৪ সালের এই দিনে মৃত্যুবরণ করেন তিনি। সিনেমায় আসার আগে তার নাম ছিল রমা দাশগুপ্ত। ১৯৩১ সালের ৬ এপ্রিল বাংলাদেশের পাবনার সিরাজগঞ্জের মহকুমার ভাঙাবাড়ি গ্রামে নানাবাড়িতে জন্মগ্রহণ করেছিলেন তিনি। তিনি মূলত বাংলা ও হিন্দি চলচ্চিত্রে অভিনয় করে জনপ্রিয়তা অর্জন করেছিলেন। বাংলা চলচ্চিত্রের মহা নায়ক উত্তম কুমারের বিপরীতে নায়িকার ভূমিকায় অভিনয় করে রোমান্টিক নায়িকার খেতাব পেয়েছিলেন তিনি।
১৯৪৭ সালে দেশভাগের আগে পরিবারের সঙ্গে তিনি কলকাতায় বসবাস শুরু করেন। পরের বছর কলকাতার এক শিল্পপতি দিবানাথ সেনের সঙ্গে তার বিয়ে হয়। বিয়ের এক বছর পরে জন্মগ্রহন করেন একমাত্র মেয়ে মুনমুন সেন।

১৯৫২ সালে ‘শেষ কোথায়’ ছবির মাধ্যমে সুচিত্রা সেন চলচ্চিত্রে যাত্রা শুরু করেন। কিন্তু ছবিটি মুক্তি পায়নি। উত্তম কুমারের সঙ্গে জুটি গড়ে আলোচিত হয়েছিলেন তিনি। রূপালি পর্দায় তার নায়ক হিসেবে অভিনয় করেই সবচেয়ে বেশি সফল হয়েছিলেন মহানায়ক উত্তম কুমার। তাদের দুজনের একসঙ্গে করা ৩০টি বাংলা ছবির মধ্যে সবগুলোই বক্স অফিসে সফল।
হিন্দি ছবিতে দিলীপ কুমারে, দেব আনন্দ, অশোক কুমার, ধর্মেন্দ্র, সঞ্জীব কুমারের সঙ্গে বিভিন্ন ছবিতে অভিনয় করেছেন তিনি। সুচিত্রা অভিনীত শেষ ছবি ‘প্রণয়পাশা’র নায়ক ছিলেন সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়।

১৯৬৩ সালে ‘সাত পাকে বাঁধা’ চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য মস্কো চলচ্চিত্র উৎসবে সুচিত্রা সেন সেরা অভিনেত্রীর পুরস্কার পান। ভারতীয় অভিনেত্রী হিসেবে তিনি প্রথম কোন আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে পুরস্কৃত হন। ১৯৭২ সালে ভারত সরকার তাকে পদ্মশ্রী সম্মান দেয়। ২০১২ সালে তাকে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের সর্বোচ্চ সম্মাননা বঙ্গবিভূষণ দেওয়া হয়।
বাংলা ছবির ইতিহাসে উত্তম-সুচিত্রা সবচেয়ে রোমান্টিক জুটি হিসেবে সফলতা পেয়েছে। পঞ্চাশ ও ষাটের দশকে বাংলা প্রেমের ছবিকে স্বর্ণযুগে পৌঁছে দিয়েছিলো উত্তম কুমারের সঙ্গে তার চিরসবুজ জুটি।
আজ থেকে দুই বছর আগে ২০১৪ সালের ১৭ জানুয়ারি হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে ৮৩ বছর বয়সে মারা যান সুচিত্রা সেন। তিনি চিরদিন বেঁচে থাকবেন বাঙালির হৃদয়ের স্বপ্নের রাণী হয়ে।
(প্রিয়.কম)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here