প্রচ্ছদ সম্পাদকীয় আসুন ঘৃণ্য, ন্যাক্কারজনক এই গণহত্যার তীব্র প্রতিবাদে সোচ্চার হই

আসুন ঘৃণ্য, ন্যাক্কারজনক এই গণহত্যার তীব্র প্রতিবাদে সোচ্চার হই

58
0
ছবি:সংগৃহীত।
সরওয়ার-ই আলম: গাজায় ইসরায়েলি সামরিক হামলার প্রতিবাদে সারাবিশ্ব যখন সোচ্চার, তখন দেশটির প্রধানমন্ত্রী বেনজামিন নেতানিয়াহু বলেছেন, এই হামলা ততদিন অব্যাহত থাকবে যতদিন তারা মনে করবেন এর প্রয়োজনীয়তা রয়েছে।তাঁর এই বক্তব্যের পর প্রশ্ন জাগে— তবে কী ইসরায়েল বর্তমান বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিধর রাষ্ট্র হিসেবে নিজের শক্তির জানান দিচ্ছে?
জাতিসংঘের মহাসচিব অনতিবিলম্বে যুদ্ধ বন্ধের আহ্বান জানালেও তাকে বিন্দুমাত্র আমলে নিচ্ছেন না ইসরায়েলি প্রশাসন। এদিকে প্যালেস্টাইনের নিরীহ জনগণের ওপর অষ্টম দিনের মত ক্ষেপণাস্ত্র হামলা অব্যাহত রেখেছে ইসরায়েলি সামরিক বাহিনী।এই হামলায় এ পর্যন্ত নারী ও শিশুসহ প্রায় দুই শতাধিক প্যালেস্টিনিয়ান নিহত হয়েছেন। জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ দফায় দফায় বৈঠকের পরও ইসরায়েলের বিরুদ্ধে নিন্দা প্রস্তাব আনতে ব্যর্থ হয়েছে। মার্কিন প্রেসিডেণ্ট জো বাইডেন, যাকে নির্বাচনের আগে বিশ্ববাসী অত্যন্ত সংবেদনশীল মনের অধিকারী একজন মানবিক মানুষ হিসেবে মনে করে আসছিল তিনি সামরিক হামলার নিন্দা না করে বিশ্ববাসীকে হতাশ করে দিয়ে বলেছেন, ‘ইসরায়েলের আত্মরক্ষার অধিকার রয়েছে’। তাঁর এ বক্তব্য যেন ইসরায়েলি সামরিক হামলাকে আরেকদফা বৈধতা দিল। এতে হতাশ খোদ ডেমোক্র্যাট রাজনীতিবিদরাও।
নিরস্ত্র প্যালেস্টিনিয়ানদের ওপর ইসরায়েলের এই হামলাকে গণহত্যা হিসেবে আখ্যায়িত করছেন কেউ কেউ। মানবতা বিরোধী অপরাধের কারণে বিশ্বব্যাপী ইসরায়েল বিরোধী মনোভাব প্রকট হচ্ছে। প্রতিবাদ সমাবেশে ইসরায়েলকে সন্ত্রাসী রাষ্ট্র হিসেবে আখ্যায়িত করে প্ল্যাকার্ড বহন করতে দেখা গেছে বিক্ষুব্ধ জনতাকে। খ্রিস্টান, মুসলিম, হিন্দু, ইহুদী, বৌদ্ধ— সকল ধর্মের মানুষ সামিল হয়েছেন প্রতিবাদ সমাবেশগুলোতে। লণ্ডনে ফ্রি প্যালেস্টাইন প্ল্যাকার্ড হাতে কয়েকজন ইহুদী ধর্মাবলম্বীকে দেখা গেছে সারিবদ্ধভাবে দাঁড়িয়ে ইসরায়েলি সামরিক হামলার প্রতিবাদ করতে। কিন্তু কোন কিছুই টলাতে পারছেনা নেতানিয়াহু প্রশাসনকে। অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে গাজার পরিপূর্ণ দখলই আসলে তাদের এবারকার হামলার মূল্য উদ্দেশ্য। যে কারণে শত শত বেসামরিক নাগরিকের কান্না, শিশুদের আর্তচিৎকার, বিশ্ববাসীর সংক্ষুব্ধ প্রতিবাদ কিছুই গা করছেনা ইসরায়েল। অবস্থাদৃষ্টে মনে হয় ইসরায়েল আসলে বিশ্বের মানচিত্র থেকে মুছে দিতে চায় প্যালেস্টাইনের নাম। আসুন ঘৃণ্য, ন্যাক্কারজনক এই গণহত্যার তীব্র প্রতিবাদে সোচ্চার হই! নিজ নিজ অবস্থান থেকে সোচ্চার হই মানবতাবিরোধী এই জঘণ্য অপরাধের বিরুদ্ধে।