প্রচ্ছদ বিনোদন আমি অপু’র সামনে দাঁড়ালেই সব ঠিক হয়ে যাবে

আমি অপু’র সামনে দাঁড়ালেই সব ঠিক হয়ে যাবে

478
0
SHARE
তানভীর তারেক: টক অব দ্য কান্ট্রি শাকিব-অপু’র সংসারের গল্প। কিন্তু এর শেষ কোথায়! শাকিবের সিদ্ধান্ত কি? অপু-শাকিব-আব্রাহামের একাট্টা সংসারে হাসিমুখ কি দেখতে যাচ্ছে আমাদের শোবিজ? সেই প্রশ্নের জবাব খোঁজার চেষ্টা করেছি আমরা। একমাত্র ইত্তেফাকের সাথে একান্তে সাক্ষাত্কারে বললেন শাকিব খান। সাক্ষাত্কার নিয়েছেন তানভীর তারেক…
কেমন আছেন?
কেমন থাকতে পারি বলেন। আমার ভাই মনির ঘুম থেকে উঠিয়ে দেখালো টিভিতে আমার স্ত্রী আর সন্তানকে লাইভ দেখাচ্ছে।
কিন্তু এভাবে না ঘটলে তো আপনার স্ত্রী, সন্তান শব্দগুলো কেউই জানতো না?
অবশ্যই জানতো। আমার আর অপুর সব রকম প্ল্যানই ছিল। আমরা বেশ ঘটা করে বিষয়টি জানাবো বলেই সবকিছু গোছাচ্ছিলাম। মাত্র দু’দিন আগেই ১২ লক্ষ টাকা দিয়েছি। কারণ ফ্ল্যাট সাজাবে, যেখানে আমাদের সংসার শুরু হবে।
তাহলে এসব প্ল্যান ভেস্তে গেল কিভাবে?
দেখুন, আমি রংবাজ ছবিতে কেন বুবলীকে নিলাম। এই খবরেও ওর মাথা নষ্ট হয়ে গেছে। আমি ওর কথামতো তো অনেকের সাথেই কাজ করিনি। আর কোরবানির ঈদে অপু কাজ করবে, এমনটাই তো প্ল্যান। বাচ্চা হওয়ার পর এমনিতেই শারীরিক অবস্থা ফিট হতে সময় লাগে। এখানে হঠাত্ করে প্ররোচনায় এমন করতে গেল!
কিন্তু দায়িত্ব নেওয়ার কথা যে বলেছেন, সন্তানেরটা নেবেন, স্ত্রীরটা নেবেন না?
আচ্ছা, আপনি বলুন আমি কলকাতা থেকে ভোরে ফিরে ঘুম ভেঙে সকালে যদি দেখি বউয়ের লাইভ, আমার সন্তানকে নিয়ে কাঁদছে। অন্যদিকে এফডিসিতে তখন আমার শত্রুপক্ষ ‘অপুর সংসার’ নামের ছবি সাইন করেছে তখন কার মাথা ঠিক থাকে। আমিও তো মানুষ নাকি?
তো এই ৯ বছর গোপন রাখলেন কেন?
আমি একা তো রাখিনি, আমরা রেখেছিলাম। প্ল্যানটা আমাদের দু’জনের ছিল। দেখুন, আমি একটা জায়গায় হেরে গেছি! সেটা হলো আমি আমার সন্তানকে তো কখনো চাইনি এভাবে মিডিয়ায় এন্ট্রি হোক। শাকিব খানের ছেলে এন্ট্রি হবে রাজার মতো। আমাকে এই জায়গাটায় অপু খুব অপমান করলো। বাকিটা সব অভিমানের জের!
শুধুই কি অভিমান? তার মানে আপনি-অপু-আব্রাহাম একসাথে সুখের সংসার শুরু করার খবরটি আমরা পেতে পারি?
কেন নয়, দায়িত্ব তো আমারই। আমাকেই সব ঠিক করতে হবে। নিছক অভিমান অনেকের প্ররোচনায় অনেক বড় হয়ে গেছে। এজন্য আমার নিজের ব্যস্ততাকেও দায়ী করবো। কিন্তু আমার সন্তানের মা হিসেবে আমি আগেও কখনো অপুকে মর্যাদাহীন রাখিনি, এখনো বলছি রাখবো না। কারণ অপু ভুল করে লাইভে গিয়ে আমাকে অপমান করতে পারে, কিন্তু অপুর মন জানে গত দেড়যুগ ধরে আমি ওর জন্য কি কি করেছি। সেগুলো ভুললে তো চলবে না। এখন এ সমাজ সবসময় নারীর কান্নার প্রতি দুর্বল। পুরুষের কান্না-হাহাকার নিয়ে ঠাট্টা করে সবাই। কিন্তু আজ বাবা হয়ে তো আমি নিজেও কেঁদেছি অনেক। তবে আমাদের এই মান-অভিমান নিয়ে বাইরের লোকদের তালি বাজাতে আমি দেবো না। অপুকে নিয়ে যারা এই নোংরা খেলায় মেতেছে, সেই খেলার শুরু ওরা করেছে, শেষটা আমি করবো।
এটা কি অনেকটা প্রতিহিংসা হয়ে গেল না!
না, এটা আমার সংসার, স্ত্রী-সন্তানের বিষয়। আমার ঘরে অশান্তি ঢুকিয়ে সবাই আমাকে ধ্বংস করতে চায়।
তাহলে এখানে কী বুবলীর প্রতি আপনার দুর্বলতাকে দায়ী করা যায়?
কখনোই না। আমি তিশা, মীমসহ অনেকের সাথেই তো কাজ করেছি। তাহলে কতজনকে আমার জন্য দায়ী করবেন। কলকাতার শ্রাবন্তী, শুভশ্রীকে নিয়েও তো সন্দেহের মিথ্যে গল্প বানানো যায়।
কিন্তু ওই যে মাঝরাতে বুবলীর বাসায় সেলফিটাই কী কোনো ইঙ্গিত দেয়?
ওই সেলফিতে কী অশোভন বিষয় ছিল আমাকে বলুন। আমি স্রেফ আমার সহকর্মীর সাথে সিনেমা সাইনিংয়ের পর ইউনিটের সাথে দেখা করতে যাই। ডিনারে অংশ নিয়েছি।
তাহলে আপনার আর অপুর সংসার শুরু হচ্ছে শিগগিরই—
অবশ্যই, তবে ওই ‘অপুর সংসার’ ছবিটি কিন্তু হচ্ছে না! হা হা হা। দেখুন, সম্পর্কের টানাপোড়েন হলে শত্রু-মিত্র চেনা যায়। আমি-অপু দু’জনই চিনলাম। কে আমাদের ভালো চায়, আর কে চায় না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here