প্রচ্ছদ কমিউনিটি সংবাদ সাপ্তাহিক পত্রিকার একুশতম বর্ষপূর্তি উদযাপিত:এক ব্যতিক্রমী সন্ধ্যা

সাপ্তাহিক পত্রিকার একুশতম বর্ষপূর্তি উদযাপিত:এক ব্যতিক্রমী সন্ধ্যা

95
0
SHARE
সৈয়দ আব্দুল কাদির, লন্ডন: বিলেতে বাংলা সংবাদপত্র জগতে একমাত্র ব্রড শিট সাপ্তাহিক পত্রিকা হাঁটি হাঁটি পা পা করে দুই দশকের বেশি সময় পার করছে।

এ উপলক্ষে গত ১৪ অক্টোবর এসেক্স এর চাডও়য়েল হিথে প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ, পত্রিকার পাঠক, গ্রাহক, শুভাকাঙ্ক্ষী ও কমিউনিটির বিশিষ্টজনের উপস্থিতিতে মে ফেয়ার ভ্যানু মূখরিত হয়ে উঠেছিল, লোকে লোকারণ্য ছিলো।
স্বাগত বক্তব্য রাখেন সাপ্তাহিক পত্রিকার সম্পাদক মোহাম্মদ এমদাদুল হক চৌধুরী। বিশিষ্ট সংবাদ পাঠক ও টিভি উপস্থাপক ফারহান মাসুদ খানের উপস্থাপনায় এতে বক্তব্য রাখেন কনজারভেটিভ পার্টির এমপি রবার্ট জেমস বাকলেন্ড কিউসি, এমপি রোশনারা আলী, ব্যারোনেস পলা মঞ্জিলা উদ্দিন, কেয়ম্যান আইল্যান্ডের সাবেক গভর্নর আনোয়ার চৌধুরী, টাওয়ার হ্যামলেটসের নির্বাহী মেয়র জন বিগস, সাপ্তাহিক পত্রিকার প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক ও চ্যানেল এস এর চেয়ারম্যান আহমদ উস সামাদ চৌধুরী জেপি,  লন্ডন বাংলা প্রেস ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মহিব চৌধুরী, লন্ডন বাংলা প্রেস ক্লাবের বর্তমান সভাপতি সৈয়দ নাহাস পাশা, বিবিসি বাংলা ও প্রথম আলো পত্রিকার সাংবাদিক কামাল আহমেদ, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ইকবাল আহমদ ওবিই, লেস্টার সিটি ক্লাবের ফুটবলার হামজা দেওয়ান চৌধুরী প্রমুখ।
বক্তাগণ বলেন বর্তমান সময়ে প্রিন্ট মিডিয়ার  দুঃসময়েও পত্রিকা যে টিকে আছে, এটাইতো আমাদের কমিউনিটির জন্য গৌরবের বিষয়। তাই এসব পত্রিকাকে আমাদের নিজেদের স্বার্থেই টিকিয়ে রাখতে হবে। সাপ্তাহিক পত্রিকার প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক আহমদ উস সামাদ চৌধুরী জেপি পত্রিকার ইতিবৃত্ত সুন্দরভাবে তুলে ধরে বলেন সমাজের অবহেলিত মানুষের কথা বলা এবং বস্তুনিষ্ঠু সংবাদ পরিবেশন করা ছিল আমার পত্রিকা প্রকাশের প্রধান লক্ষ্য।

আমি এখনো বিহাইন্ডে থেকে সব সময় পত্রিকার কল্যাণার্থে কাজ করে যাচ্ছি।

স্বাগত বক্তব্যে সাপ্তাহিক পত্রিকার সম্পাদক মোহাম্মদ এমদাদুল হক চৌধুরী এবং সমাপনী বক্তব্যে প্রধান সম্পাদক
মোহাম্মদ বেলাল আহমদ উপস্থিত সকলকে ধন্যবাদ জানান। উভয়েই বলেন আজকের এই দিনটি পত্রিকা পরিবারের সদস্যদের জন্য একটি স্বরণীয় দিন হয়ে থাকবে। তাঁরা আরো বলেন সর্বস্তরের মানুষের আজকের এই উপস্থিতি আমাদেরকে উৎসাহিত করেছে। আশাকরি কমিউনিটির মানুষের এই উৎসাহ ও অনুপ্রেরণা নিয়ে ইনশাআল্লাহ আমরা বহুকাল টিকে থাকবো।

 উক্ত অনুষ্ঠানে ছিল মজাদার নৈশভোজের আয়োজন। সবশেষে অনুষ্ঠিত হয় রাফেল ড্র। উপস্থিত সবাইকে একটা করে গুডিব্যাগ ও বিতরণ করা হয়েছে সাপ্তাহিক পত্রিকার পক্ষ থেকে।