প্রচ্ছদ সাহিত্য কবি মঞ্জুকে নিয়ে চারণের পাঠচক্র ‘পৃথিবী মরিয়া গেলে পৃথিবীর ধড় রাখিয়া দিও...

কবি মঞ্জুকে নিয়ে চারণের পাঠচক্র ‘পৃথিবী মরিয়া গেলে পৃথিবীর ধড় রাখিয়া দিও লালনের বুকে’

58
0
SHARE
লণ্ডন, ২৫ নভেম্বর – গত ২৪ নভেম্বর, শনিবার সন্ধ্যা ৬টায় গ্যাটরেক্স স্ট্রিটে চারণের অফিসে অনুষ্ঠিত চারণের ১৮৮তম পাঠচক্র নিবেদন করা হলো প্রয়াত কবি দেলোয়ার হোসেন মঞ্জুকে। এক মিনিট নিরবতা পালনের মাধ্যমে কবির প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে সুরমার সম্পাদক কবি ফরীদ আহমদ রেজা তাঁর লিখিত প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন। এর পর কবি সারওয়ার-ই আলম তাৎক্ষণিক লিখিত একটি প্রবন্ধ তুলে ধরেন।
ফরীদ আহমদ রেজা দীর্ঘদিন দেলোয়ার হোসেন মঞ্জুর কবিতাকে অবলোকন করে আসছেন। বিলতের কবিদের তিনি বিভিন্ন পর্যায় বিশ্লেষণ করেছেন। কবি মঞ্জু তাদের মধ্যে অন্যতম। পৃথিবীর প্রতি কবির মানবিক দৃষ্টিভঙ্গি কেমন ছিল, তার কবিতায় কীভাবে মরমীভাবনা নানান দিকে মোড় ফিরিয়েছে, ফরীদ আহমদ রেজার লেখায় সেসব বিষয় উঠে এসেছে। তিনি কবি মঞ্জুর কবিতা থেকে উল্লেখ করেন, ‘পৃথিবী মরিয়া গেলে/ পৃথিবীর ধড়/ রাখিয়া দিও লালনের বুকে।’
কবি সারওয়ার-ই আলম কবি দেলোয়ার হোসেন মঞ্জুর সাম্প্রতিক কবিতার বিশ্লেষণ ধর্মী কিছু বক্তব্য তার নিবন্ধে তুলে ধরেন। তিনি শুরুতেই উল্লেখ করেন, ‘জীবনের গভীর বোধকে কাব্যিক মূর্ছনায় আর বিশ্বাসের সুদৃঢ় প্রত্যয়গুলোকে বিমূর্ত ভাবনায় চিত্রকল্পের কৌশলী আশ্রয়ে উপস্থিত করেছেন কবি দেলোয়ার হোসেন মঞ্জু।’
কবি সারওয়ার-ই আলম কবি মঞ্জুর সাম্প্রতিক সময়ে ফেইসবুকে দেয়া তাঁর বিভিন্ন স্ট্যাটাসকে তুলে আনেন যা একজন কবির কাব্যভাবনার সমান্তরাল অনুসঙ্গ। মঞ্জুর স্ট্যাটাসে দেয়া চিঠি-২ থেকে উল্লেখ করেন, ‘আর কোনো এক শেষ রাতে জেনে যাই, বাতাসের তাণ্ডবে বৃক্ষ ভেঙ্গে গেলে হা করে বেরিয়ে আসে কাঠের মগজ।’ কবির এই অদ্ভুদ কাব্য ভাবনাকে পুরো লেখা জুড়ে সুনিপুণ বিশ্লেষণে তুলে এনেছেন তিনি।
চিন্তক মাসুদ রানার উপস্থাপনায় সূচিত পাঠচক্রে প্রথমে সবার পরিচিতি তুলে ধরা হয়।
মাসুদ রানা তাঁর ভূমিকা পর্বে কবি দেলোয়ার হোসেন মঞ্জুর তারুণ্যের প্রাণ শক্তির কথা উল্লেখ করে তাঁর অল্প কিছু স্মৃতিকথা তুলে ধরেন। প্রয়াত কবির কবিতা থেকে আবৃত্তিসহ স্মৃতিচরণমূলক আলোচনা করেন আবৃত্তি শিল্পী ও নাট্যকর্মী সমর সাহা।
বাংলা সাহিত্যের আরেক শক্তিমান কবি কিশওয়ার ইবনে দিলওয়ার নিজের জীবদ্দশায় কবি মঞ্জুর প্রথম কাব্য গ্রন্থ ‘ইস্পাতের গোলাপ’ নিয়ে একটি সংক্ষিপ্ত লেখা পাঠিয়েছিলেন কবি মুহাম্মদ মারুফের কাছে। এই প্রকাশিত লেখাটি পাঠ করে শুনান আবৃত্তি শিল্পী নাজমুল আলম। কবির কবিতা থেকে আবৃত্তি করেন কণ্ঠ শিল্পী সোমা দাশ। সোমা দাশ এর পূর্বে বলেন, আমার কবির সঙ্গে কোনো পরিচয় সেই। ফেইসবুকের মাধ্যমেই এই কবির অকাল প্রয়ানের খবর জানতে পারি। চারণ প্রয়াত কবিকে সম্মান জানাচ্ছে শুনে আসা। ক্রমশঃ কবিকে আরো জানতে পারবো আশা রাখি।
কবিকে নিবেদন করে স্মরচিত কবিতা পাঠ করেন মুহাম্মদ ইকবাল, এম মোশাহিদ খান, শাহনাজ সুলতানা ও আহমদ ময়েজ।
আলোচনায় আরো অংশ নেন নাট্যকর্মী ও আবৃত্তি শিল্পী সাদী, সমীর উজ্জামান, কুতুব আহসান, মোশতাক আহমদ প্রমুখ।